নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি জরিমানা

খেলা

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে (ডিপিএল) ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণের কারণে শাস্তির মুখে পড়তে চলেছেন মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ক্রিকেটীয় আইন ভঙ্গের অভিযোগের শাস্তি হিসেবে নিষেধাজ্ঞা ও জরিমানা দুই-ই পেতে পারেন সাকিব।

শুক্রবার (১১ জুন) ‘হোম অব ক্রিকেট’ খ্যাত মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে হাই ভোল্টেজ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল ঢাকা আবাহনী ও মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। মাঠের খেলা ছাপিয়ে ম্যাচে বড় হয়ে ওঠে আম্পায়ার ও আবাহনীর কর্মকর্তাদের সাথে সাকিবের দ্বন্দ্ব।

মুশফিকের রহিমকে এলবিডব্লিউর আবেদনে সাড়া না দেওয়ায় আম্পায়ারের ওপর অসন্তোষ প্রকাশ করে প্রথমে লাথি দিয়ে স্ট্যাম্প ভেঙে ফেলেন সাকিব। এরপর বৃষ্টির কারণে খেলা বন্ধের জেরে হাত দিয়ে স্ট্যাম্প তুলে তা মাটিতে ছুঁড়ে ফেলেন। এরপর বাকবিতণ্ডায় জড়ান আবাহনী কোচ খালেদ মাহমুদ সুজনের সাথে। এ সময় আবাহনীর দর্শক ও কর্মকর্তাদের উদ্দেশে অকথ্য ভাষা ব্যবহার করেছেন বলেও অভিযোগ সাকিবের বিরুদ্ধে।

অসৌজন্যমূলক আচরণ বা আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে সাকিব তাই ফেঁসে যাচ্ছেন। ম্যাচ শেষে ম্যাচ রেফারি মোর্শেদুল আলমের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযোগ করেছেন। সাকিবের দোষের মাত্রা বিবেচনা করে তাকে শাস্তি দেবেন ম্যাচ রেফারি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক আম্পায়ার জানিয়েছেন, নিষেধাজ্ঞা ও জরিমানা দুই-ই পেতে পারেন সাকিব। সেক্ষেত্রে অন্ততপক্ষে ৩ ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা ও ম্যাচ ফি’র বড় অংশ জরিমানা গুনতে হতে পারে সাকিবকে।

ঐ আম্পায়ারের ভাষায়, ‘এ ধরনের ঘটনায় ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা ও অর্থ জরিমানার বিধান রয়েছে। সাকিবের বেলাতে সেটাই ঘটতে যাচ্ছে।’সাকিব অবশ্য তার অশোভন আচরণের জন্য খেলা শেষে ম্যাচ অফিসিয়ালদের কাছে দুঃখপ্রকাশ করেছেন। আবাহনীর ড্রেসিংরুমে গিয়েও ক্ষমা চেয়েছেন সুজনসহ অন্যদের কাছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *