বাংলাদেশসহ ৩২ দেশে আম উপহার পাকিস্তানের, যুক্তরাষ্ট্র-চীনের না!

আন্তর্জাতিক

হরহামেশার মতো প্রতিবছর ‘আম কূটনীতি’ অব্যাহত রেখেছে পাকিস্তান। বাংলাদেশসহ এ বছর বিশ্বের ৩২টিরও বেশি দেশের রাষ্ট্রপ্রধানের জন্য উপহার হিসেবে আম পাঠিয়েছে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রনালয়। তবে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনসহ আরো কিছু দেশ কোয়ারান্টাইন নীতিমালার কথা উল্লেখ করে এই উপহার নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। তারা পাকিস্তানকে এই উপহার না পাঠানোর অনুরোধ করেছে।

জানা যায়,পাকিস্তান তাদের ‘আমের কূটনীতি’র স্মারক হিসেবে বুধবার (৯জুন) যুক্তরাষ্ট্র, চীনসহ বিশ্বের ৩২টি দেশে আম পাঠানোর প্রস্তাব দেয় বলে দ্য নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস শুক্রবার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে। ওই ৩২টি দেশের মধ্যে ইরান, তুরস্ক, যুক্তরাজ্য, আফগানিস্তান, রাশিয়াও রয়েছে।

এদিকে, পাকিস্তানের এই উপহার বাংলাদেশ গ্রহণ করেছে কী না তা ওই প্রতিবেদনে উল্লেখ নেই। পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ড. আরিফ আলভির তরফ থেকে পাকিস্তানের বিশেষ প্রজাতির এক বাক্স করে আম পাঠানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। সূত্র জানিয়েছে, পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁকেও আম পাঠাতে চেয়েছিল। কিন্তু এ ব্যাপারে কোনো সাড়া দেয়নি প্যারিস।

পাকিস্তানের প্রেসিডেন্টের কাছ থেকে এই উপহার না নিয়ে পারায় দুঃখ প্রকাশ করেছে কানাডা, নেপাল, মিশর ও শ্রীলঙ্কা। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ বছর উপহার হিসেবে চোষা জাতের আম বাছাই করা হয়েছে। এর আগের বছরগুলোতে ‘আনোয়ার রাতুল’ ও ‘সিন্ধেরি’ নামের আম উপহারের তালিকায় থাকত। এবার সে আমের মৌসুম এখনও আসেনি।

পাকিস্তানের প্রয়াত নবাবজাদা নসরুল্লাহ ও প্রয়াত পীর পাগারো এই আম কূটনীতির প্রবক্তা। পরবর্তীতে সাবেক প্রধানমন্ত্রী সাইদ ইউসুফ রাজা গিলানি, সাধারণ পরিষদের সাবেক বিরোধিদলীয় নেতা সাইদ খোরশেদ এবং সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জাহাঙ্গীর খান তারিন এই ধারা অব্যাহত রাখেন। এরমধ্যে খোরশেদ খান কারাগারে থেকেও টানা তিন বছর ধরে আম কূটনীতি অব্যাহত রেখেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *