পরীমনির ‘মাসেরাতি’ গাড়ি ও নানা রহস্য

আলোচিত

পরীমনি। রুপালি পর্দার আলোচিত এক অভিনেত্রী। চলচ্চিত্র ছাড়াও নানা কারণে শিরোনামে এসেছেন বারবার। বিতর্ক যেন তার পিছু ছাড়ছে না। উত্তরার বোট ক্লাবের ঘটনা এবং গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাবে ভা’ঙচুরের অ’ভিযোগের পর তাকে নিয়ে নানা আলোচনা দেশজুড়ে।

এর মধ্যে সাড়ে ৩ কোটি টাকায় কেনা গাড়ির বি’ষয়টিও এখন সামনে এসেছে। ২০২০ সালের ২৪শে জুন তার সাদা রঙের হ্যারিয়ার গাড়িটি দু’র্ঘটনায় দুমড়ে মুচড়ে যায়। এর ২৪ ঘণ্টা পার হতে না হতেই তিনি প্রায় সাড়ে ৩ কোটি টাকার রয়েল ব্লু-রঙের মাসেরাতি গাড়ি কেনেন।

ইতালিয়ান অভিজাত গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ফিয়াট অটোমোবাইলসের জনপ্রিয় ব্র্যান্ড ‘মাসেরাতি’। গাড়িটি কিনে পরীমনি ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন। সঙ্গে সঙ্গে ভাইরাল হয়ে যায় তা। চলচ্চিত্র পাড়ায় তৈরি হয় নানা গুঞ্জন। কে দিয়েছেন পরীমনিকে ওই গাড়িটি?

উত্তরার বোট ক্লাবের ঘটনার পর পরীমনি ঢাকা মহানগর গো’য়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে যান। তাকে গো’য়েন্দা পুলিশ ওই ঘটনাসহ আরও কিছু বি’ষয় নিয়ে জেরা করেন। কথা প্রসঙ্গে তার গাড়িটির কথা উঠে আসে। গাড়ির প্রসঙ্গে গো’য়েন্দাদের জেরায় তিনি বিব্রতবোধ করেন এবং ওই বি’ষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

নিজের ফেসবুক পেজে স্ট্যাটাস দিয়ে পরীমনি জানান, উত্তরার বোট ক্লাবে তাকে হ’’ত্যা ও ধ”ণের চেষ্টা করা হয়েছে। এই ঘটনায় সাভার থানায় ধ”ণ ও হ’’ত্যাচেষ্টার অ’ভিযোগে ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিনসহ ছয়জনের বি’রুদ্ধে মা’মলা করেন তিনি।

পরে পুলিশ উত্তরা এক নম্বর সেক্টরের ১২ নম্বর রোডের একটি বাসা থেকে নাসির উদ্দিন মাহমুদ, অমিসহ পাঁচজনকে গ্রে’প্তার করে। নাসিরের মা’দক মা’মলার প্রধান সমন্বয়কারী ত’দন্তকারী ঢাকা মহানগর গো’য়েন্দা পুলিশের গুলশান বিভাগের ডিসি মো. মশিউর রহমান জানান, ‘মা’মলাটি তারা ত’দন্ত করছেন। ত’দন্তের স্বার্থে কিছু বলা যাচ্ছে না।

ঢাকা মহানগর গো’য়েন্দা পুলিশের এক কর্মকর্তা এবং পরীমনির ছবি পরিচালনাকারী এক পরিচালকের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গভীর রাতে পরীমনি বিভিন্ন ক্লাবে ঘুরে বেড়াতেন। তার বাসায়ও একটি মিনি বারের মতো জায়গা রয়েছে। ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ ক্লাবগুলোতে সদস্য ছাড়া প্রবেশের কোনো অনুমতি না থাকলেও ওইসব ক্লাবগুলোতে তিনি নিয়মিত যাতায়াত করতেন।

সূত্র জানায়, গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাবে তার এক ব্যবসায়ীর সঙ্গে পরিচয় হয়। ওই ব্যবসায়ী থাকেন ঢাকার অভিজাত এলাকায়। তিনিও গত বছরের মাঝামাঝিতে একটি বি’ষয়ে খবরের শিরোনাম হয়েছিলেন। পরে তৃতীয় পক্ষ ওই ঝামেলা মিটিয়ে দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *